বাপ রে বাপ! চুরি করে এত্তো টাকা পেলাম! আনন্দে হার্টফেল করল চোরেরই

এক অদ্ভুত ঘটনার সাক্ষী থাকল উত্তরপ্রদেশ। এতটাও আশা করতে পারেনি চোর। চুরি করার পর তার থলিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ দেখে রীতিমতো ভিরমি খাওয়ার উপক্রম। আনন্দ আর বিস্ময়ে কী করবে ভেবে পাচ্ছিল না সে। না, বেশিক্ষণ সেই চাপ সামলানো যায়নি। টাকার অঙ্ক দেখেই হার্ট অ্যাটাক করল চোর। প্রসঙ্গত, গত মাসের ১৬ ও ১৭ ফেব্রুয়ারি উত্তরপ্রদেশের কোতওয়ালি দেহাত এলাকার এক পাবলিক সার্ভিস সেন্টারে চুরি হয়ে যায়। ঘটনার তদন্তে নামে বিজনৌর থানার পুলিশ। সম্প্রতি দুই চোরের মধ্যে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। আর ওই চোরের মুখ থেকেই উঠে এল এই চাঞ্চল্যকর তথ্য।

পরের দিকে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই পাবলিক সার্ভিস সেন্টারের মালিক নবাব হায়দার (Nawab Haider)। তিনি জানিয়েছেন, সেন্টার থেকে সাত লক্ষেরও বেশি টাকা চুরি হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়ে যায়। আর একজন চোরের খোঁজে এলাকায় এলাকায় তল্লাশি চলতে থাকে। স্থানীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়। শেষমেশ বুধবার এই চুরির ঘটনার রহস্য ভেদ করে পুলিশ। নাগিনা থানা এলাকার আলিপুর থেকে নওসাদ ও এজাজ নামে দুই প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়।


প্রসঙ্গত, দিন কয়েক আগে খানিকটা একইরকম ঘটনা ঘটে থাইল্যান্ডে। স্থানীয় কয়েকটি প্রতিবেদন সূত্রে খবর, থাইল্যান্ডের ফেচাবুন সেন্ট্রাল (Phetchabun Central) প্রদেশের একটি বাড়িতে চুরি করতে ঢোকে ২২ বছরের এক যুবক। কিন্তু শেষমেশ ঘুমিয়ে পড়ে সে। থাইল্যান্ডের উইচিয়ান বুরি (Wichian Buri) জেলার একটি বাড়িতেই এই অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছিল। পুলিশ সূত্রে খবর, রাত দু’টো নাগাদ আতিথ কিন (Atith Kin) নামের ওই যুবক ঘরের জানালা ভেঙে ভিতরে ঢোকে। জানালা ভাঙার এই পরিশ্রমের পর খানিকটা ক্লান্ত হয়ে পড়েছিল সে। এর পর ঘরের এসি অন করে। আর সেখানেই ঘুমিয়ে পড়ে। কিন্তু দুঃখের বিষয় যথাসময়ে ঘুম ভাঙেনি তার।

ওই বাড়ির মালিক জানান, চোর তাঁর মেয়ের ঘরের জানালা ভেঙে ঢুকেছিল। পরে এসি অন করে ঘুমিয়ে পড়ে। মেয়ে সে দিন বাড়িতে ছিল না। আর মেয়ের ঘরে অন্য কাউকে ঘুমোতে দেখেই সন্দেহ হয়। এর পর তিনি দরজা খুলে ভিতরে গিয়ে দেখেন, মেয়ের বিছানায় কম্বল মুড়ি দিয়ে এক অজানা যুবক নিশ্চিন্তে ঘুমোচ্ছে। তড়িঘড়ি পুলিশে খবর দেন। পরে আটক করা হয় ওই

error: Content is protected !!