প্রেমে বাঁধা দেওয়ায় স্ত্রীকে আগুনে পোড়ালেন স্বামী

ভোলার দৌলতখান উপজেলায় প্রেমে বাঁধা ও যৌতুকের টাকা না দেওয়ায় রুজিনা নামে এক গৃহবধূকে আ’গুনে পোড়ানোর অ’ভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বি’রুদ্ধে। ভুক্তভোগী বর্তমানে দৌলতখান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল ইসলাম বেপারীর বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে। আ’হত রুজিনা উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের ছোটধলী গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবার নাম কাঞ্চন (মৃ’ত’)।

আজ বুধবার হাসপাতালে রুজিনার সঙ্গে এই প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি জানান, ২০১৭ সালে উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল ইসলাম বেপারীর ছেলে নিজামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন না যেতেই তাকে যৌতুকের টাকার জন্য বিভিন্নভাবে নি’র্যাত’ন শুরু করেন নিজাম। মেয়ের সুখের জন্য জামাইকে নগদ ১ লাখ টাকা ও দুই ভরি স্বর্ণ দেন রুজিনার মা। এর মধ্যে তাদের একটি সন্তানও হয়।

গত দুই বছর ধরে নিজাম মোবাইলে বিভিন্ন মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলে। একদিন অপরিচিত একটি মেয়ের সঙ্গে ভিডিও কলের কথপোকথন দেখে ফেলেন রুজিনা। স্বামীর অ’নৈতি’ক কাজ দেখে তিনি বাঁধা দেন। সঙ্গে সঙ্গে রুজিনাকে মা’র’ধর শুরু করেন নিজাম।

সম্প্রতি ৫ হাজার টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দিতে বলেন নিজাম। কিন্তু এনে না দেওয়ায় রুজিনাকে ফের মা’রধ’র করতে শুরু করেন নিজাম। এ পর্যায়ে আগুন লাগা লাকড়ি এনে তাকে পেটাতে থাকেন। এতে রুজিনার শরীরের বেশ কিছু অংশ পুড়ে যায়।

এ ঘটনায় দৌলতখান থানায় একটি লিখিত অ’ভিযো’গ দায়ের করা হয়েছে। নিজাম পলাতক আছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলার রহমান। তিনি বলেন, ‘ত’দ’ন্ত সাপেক্ষে আ’ইনা’নুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ উৎস: দৈনিক আমাদের সময়।