Breaking News

লুট করতে বোমা নিয়ে ব্যাংকে ঢুকেছিলেন তিনি

গাজীপুরে ব্যাংকে বোমা মারার হুমকিতে টাকা লুটের চেষ্টার অভিযোগে আবু বকর (৩২) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। ওই ব্যক্তি বোমার মাধ্যমে ব্যাংক ম্যানেজারকে জিম্মি করে টাকা লুটের পরিকল্পনা করেছিলেন। পরে পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে কালো ব্যাগের ভেতরে রাখা একটি বোমা নিষ্ক্রিয় করে।

আজ বুধবার দুপুরে চান্দনা চৌরাস্তার শাপলা ম্যানশনের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত প্রাইম ব্যাংকের শাখায় এ ঘটনা ঘটে। বাংকের নিরাপত্তাকর্মী মো. শামীম জানান, আজ দুপুর ১২টা ২৩মিনিটে ওই যুবক কাঁধে একটি ব্যাগ নিয়ে শাখা ম্যানেজার ফরিদ আহমেদের কক্ষে ঢুকে।
আটক আবু বকর বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের সিকান্দার আলীর ছেলে। তিনি গাজীপুর মহানগরীর গাছা বোর্ডবাজার এলাকার বেলমন্ট গার্মেন্টসের চাকরিচ্যুত শ্রমিক। তিনি বোর্ডবাজারের বটতলা এলাকায় বসবাস করেন।

পুলিশ জানায়, ব্যাংকে প্রবেশের পর একপর্যায়ে ওই ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপকের কক্ষে প্রবেশ করে তার ব্যাগে বোমা রয়েছে এবং এই বোমা দিয়ে ব্যাংক উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করেন। বিষয়টি টের পেয়ে ওই ব্যক্তিকে কৌশলে আটকে রেখে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ পুলিশে খবর দেয়। এ সময় বোমা আতঙ্কে মুহূর্তে ব্যাংকের শাখা কার্যালয়সহ আশেপাশের দোকান-পাট বন্ধ হয়ে যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আবু বকরকে আটক করে। পরে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলকে খবর দেওয়া হয়। আজ বিকেলে তারা সতর্কতার সঙ্গে দ্বিতীয় তলা থেকে বোমাটি উদ্ধার করে নিষ্ক্রিয় করেন।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের (জিএমপি) ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মো. আজাদ মিয়া জানান, পুলিশ ওই যুবককে আটক করে কৌশলে ব্যাগটি তার হাতছাড়া করা হয় এবং তাকে বাসন থানা পুলিশে স্থানান্তর করে ঢাকায় বোমা ডিসপোজাল টিমকে খবর দেওয়া হয়।

তিনি জানান, ব্যাগে থাকা বস্তুটি ছিল একটি ইমপ্রোভাইড এক্সক্লেসিভ ডিভাইস (আইইডি)। দুপুর পৌনে ৩টার দিকে ঢাকা সিটি কাউন্টার টেরিরিজম (সিটিটিসি) ইউনিটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রহমত উল্লাহ চৌধুরীর নেতৃত্বে ১১ সদস্যের বোমা ডিসপোজাল সদস্যরা ব্যাংকে পৌঁছান। পরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে শাপলা ম্যানশনের সামনে ব্যাগে থাকা বোমাটি বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

জিএমপি’র ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মো. আজাদ মিয়া আরও বলেন, ‘বোমা দিয়ে ব্যাংকের ম্যানেজারকে জিম্মি করে টাকা লুটের চেষ্টার অভিযোগে আবু বকরকে আটক করা হয়েছে। জঙ্গি বা অন্য কোনো দুর্বৃত্ত এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে কি না, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

এদিকে, বোমা নিস্ক্রিয় করার সময় শাপলা ম্যানশনের ও আশেপাশের দোকান পাটের ব্যাবসায়ীরা আতঙ্কে দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়। এ সময় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানবাহন চলাচল সাময়িক বন্ধ হয়ে যায়।