Breaking News

ইউএনও ওয়াহিদাকে ওএসডি, স্বামীকে বদলি স্বাস্থ্যে

সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে।
একই সঙ্গে তার স্বামী রংপুরের পীরগঞ্জের ইউএনও মো. মেজবাউল হোসেনকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে বদলি করা হয়েছে।

গত বুধবার (১৬ই সেপ্টেম্বর) এই বদলি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে আদেশ জারি করা হয়েছে।

এর আগে গত ২রা সেপ্টেম্বর দিবাগত গভীর রাতে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের সরকারি বাসভবনে সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হন ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলী।

ওয়াহিদা খানমের মাথায় হাতুরি দিয়ে আঘাত করা হয়। তাকে প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে রংপুরে একটি ক্লিনিকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে থেকে ৩রা সেপ্টেম্বর দুপুরে হেলিকপ্টারে অচেতন অবস্থায় ওয়াহিদা খানমকে ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালে ভর্তি করা হয়।

৩রা সেপ্টেম্বর রাতে তার মাথায় অস্ত্রোপচার হয়। ধীরে ধীরে তার অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। ওয়াহিদা খানমের বাবাকেও ঢাকায় নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এদিকে পুলিশের সার্বিক তদন্ত, আলামত এবং সাক্ষীদের জবানবন্দি অনুযায়ী ইউএনওয়ের বাড়ির মালি মূল হামলাকারী রবিউল ইসলাম। পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থা-ডিবির তদন্তে এটিই প্রমাণিত হতে যাচ্ছে এ হামলার সঙ্গে রবিউল একাই জড়িত ছিল।

আজ শনিবার (১৯শে সেপ্টেম্বর) বেলা ১টায় পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, রোববার (২০শে সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় রিমান্ড শেষে রবিউলকে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদানের জন্য আবার হাজির করা হবে।

এ মামলায় সন্দেহজনকভাবে আরো ৪ জনকে আসামি হিসেবে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা দিনাজপুর কারাগারে রয়েছেন। তারা হলেন- আসাদুল হক, নাহিদুল ইসলাম পলাশ, নবিরুল ইসলাম ও সান্টু কুমার দাস।