পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, তিন যুবক গ্রেপ্তার

গাজীপুরের কাশিমপুরে কয়েকদিনের ব্যবধানে আবারও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এবার কারখানা থেকে বাসায় যাওয়ার পথে জোর করে তুলে নিয়ে এক পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করেছেন কয়েকজন যুবক। পুলিশ এ ঘটনায় এক সিকিউরিটি গার্ডসহ তিন যুবককে গ্রেপ্তার করেছে।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে ও ধর্ষণকারীদের শাস্তির দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার সকালে থানার সামনে বিক্ষোভ করেছে ওই নারীর সহকর্মীরা।

আটককৃত তিনজন হলেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর থানাধীন সারদাগঞ্জ এলাকার শাহাদত হোসেন (৩২), ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট থানার গোবরকুড়া এলাকার আমিনুল ইসলাম (২৮), বগুড়া জেলার আদমদিঘী থানা এলাকার সিকিউরিটি গার্ড বায়োজিদ হোসেন (২৫)।

কারখানার চেয়ারম্যান কাজী আতাউর রহমান, সহকর্মী ও স্থানীয়রা জানায়, কাশিমপুরে ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন ওই নারী (২৫)। কাজ শেষে গতকাল বুধবার রাত দেড়টার দিকে বাসায় ফিরছিলেন তিনি। তাঁকে বাসা পর্যন্ত এগিয়ে দেওয়ার জন্য কারখানার কাটিং ম্যানেজার উজ্জ্বল তাঁর সঙ্গে যাচ্ছিলেন। তাঁরা স্থানীয় স্কয়ার গেইট পুকুরপাড় এলাকায় পৌঁছালে কয়েকজন যুবক তাঁদের পথরোধ করেন। এরপর মারধর করে পাশের হাউজিং এলাকায় নিয়ে যান। সেখানে ওই হাউজিংয়ের সিকিউরিটি গার্ডরুমের পাশের একটি বাঁশের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রেখে উজ্জ্বলকে আবার মারধর করের এবং পোশাককর্মী দুজনের স্বজনদের কাছে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। পরে যুবকরা ওই নারীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। রাতভর ধর্ষণ শেষে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে ওই দুই পোশাককর্মীকে ছেড়ে দিয়ে যুবকরা পালিয়ে যান।

বিষয়টি জানাজানি হলে ওই কারখানার ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা আজ সকালে জিএমপির কাশিমপুর থানার গেইটে জড়ো হয়ে এ ঘটনার প্রতিবাদে ও ধর্ষণকারীদের শাস্তির দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ করে।

জিএমপির কাশিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবে খুদা বলেন, ‘গতকাল রাতের সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আকতার হোসেন মাওলানা (৪৫) ও এমারত হোসেন (৪৭) নামের দুজনকে তাদের স্বজনদের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার খোন্দকার লুৎফুল কবির বলেন, ‘পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

You cannot copy content of this page